জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করবেন যেভাবে

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করবেন যেভাবে

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন কিভাবে করতে হয় আজকে আমরা জানবো|

আমাদের জীবনযাত্রার প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয় পত্র প্রয়োজন হয়ে থাকে।

এছাড়া আপনি নাগরিক সেবা পেতে অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্র বা NID Card বিকল্প  নেই।

এবং সরকারি বেসরকারি চাকরি থেকে শুরু করে ড্রাইভিং লাইসেন্স, ভূমি রেজিস্ট্রেশ্‌ন

ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এবং ভোটদানের ক্ষেত্রেও জাতীয় পরিচয় পত্র দরকার পরে।

তাছাড়া বর্তমানে অনলাইনের মাধ্যমে nid cards বা স্মার্ট কার্ডের সকল সুবিধা গ্রহণ করা যায়।

আমরা যখন ভোটার আইডি কার্ড করার জন্য আবেদন করে ছিলাম তখন যেকোনো কারণেই

হোক জাতীয় পরিচয় পত্র ভুল হয়ে যায় | NID Card এ ভুল হলে অবশ্যই সেটা ঠিক করা উচিত|

তাই আজকের মূল আলোচনা হলো জাতীয় পরিচয়পত্রের ভুল সংশোধন করবেন যেভাবেএই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে ইনশাল্লাহ।

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন পদ্ধতি

বর্তমানে এনআইডি কার্ডের যেসব অনলাইন সেবা রয়েছে তার মধ্যে জাতীয় পরিচয় পত্রসংশোধন অন্যতম।এছাড়া আগে মানুষ ভুল সংশোধন করতে অফলাইনে বা ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে সমস্যা সমাধান করে থাকতো  এতে অনেক সময় ব্যয় হতো।এখন মানুষ অনলাইনে মাধ্যমে বাংলাদেশ এনআইডি পোর্টাল থেকে খুব সহজেই এইসেবা গ্রহণকরতে পারে। অনলাইন পোর্টালের মাধ্যমে ঘরে বসেই আপনি একটি স্মার্টফোন অথবাকম্পিউটারের মাধ্যমে নিজে নিজে ভোটার তথ্য সংশোধন করতে পারেন।

NID Card/ভোটার আইডি কার্ডের নিজের নাম বা জন্ম তারিখ এ ভুল থাকলে সেটা ঠিক করা যায়|

তার জন্য অবশ্যই আপনাকে আবেদন দাখিল করতে হবে|জাতিও পরিচয় পত্রের ভুল মুলত  ২ ভাবে করা যায় যেমন

উপজেলা নির্বাচন অফিস এর মাধ্যমে

সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসের মাধ্যমে  আমরা ভুল সংশোধন  করতে পারি।

এর জন্য নির্বাচন অফিস এ গীয়ে ভোটার আইডি কার্ড  সংশোধন ফরম ২  সংগ্রহ করে ফরম ভাল ভাবে পুরন করে অফিসে জমা দিতে হবে। এবং  ভুল সংশোধনের জন্য নির্ধারিত  ফি   নির্ধারিত ব্যাংক  এর মাধ্যমে জমা দিতে হবে| এবং এর রশিদ  এবং

নির্ধারিত ডকুমেন্ট  পিনআপ করে জমে দিতে হবে|সব কিছু ঠিক থাকলে কিছু দিনের ভিতর আপনার আইডি কার্ড  ভুল সংশোধিত হয়ে আসবে|

অনলাইন এর মাধ্যমে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন

অনলাইনে মাধ্যমে বাংলাদেশ এনআইডি পোর্টাল থেকে খুব সহজেই  এই কাজ টি করা যাবে।

অনলাইন পোর্টালের মাধ্যমে ঘরে বসেই আপনি একটি স্মার্টফোন অথবা কম্পিউটারের মাধ্যমে নিজে নিজে ভোটার তথ্য সংশোধন করতে পারেন।

Bangladesh NID application Registarion

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে প্রথমে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার এবং জন্ম তারিখ দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

এবং অবশ্যই আপনাকে এনআইডি ওয়ালেট অ্যাপস টি ডাউনলোড করে face varifecation এর মাধ্যমে registration কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে।

ওয়েবসাইটে login

এর জন্য প্রথমে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে services.nidw,gov.bd গিয়ে লগিন করে  দরকারি সব তথ্য দিয়ে  সাবমিট করলে কিছু দিনের মধ্যে ভোটার আইডি কার্ড এর ভুল সংশোধন হয়ে যাবে|

ভোটার তথ্য সংশোধন

রেজিস্ট্রেশন সঠিকভাবে হলে আপনি এনআইডি একাউন্টে লগইন করবেন এবং আপনার সামনে এরকম একটি ইন্টারফেস চলে আসবে।

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করবেন যেভাবে

এখানে আসার পরে আপনি তিন ধরনের তথ্য দেখতে পাবেন যেমন ব্যক্তিগত তথ্য অন্যান্য তথ্য ও ঠিকানা। এবং ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধন করার জন্য উপরে ডান পাশে এডিট “বাটনে “ক্লিক করতে হবে। সময় অপেক্ষা করলে নিচের  মতো এরকম একটি ইন্টারফেস দেখতে পারবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করবেন যেভাবে

এরপর আপনি যে তথ্যটি সংশোধন করতে ইচ্ছুক তার বাম পাশে ঠিক অপশনে ক্লিক করতে হবে|

এভাবে আপনার ভুল তথ্য গুলো প্রমাণপত্রের সাথে মিল রেখে সঠিকভাবে টাইপ করতে হবে।তথ্যগুলো সঠিকভাবে হলে পরবর্তী বাটনে ক্লিক করে কিছু সময় অপেক্ষা করলেসংশোধনের আগে এবং সংশোধিত হওয়ার পরে যে তথ্য গুলো দেখতে পাবেন।এখানে সব ধরনের তথ্যগুলো যদি সঠিক হয়ে থাকে তাহলে পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন।

ভুল সংশোধনের জন্য ফি প্রদান

আপনি কোন ধরনের তথ্যের ভুল সংশোধন করতে চান সেই অনুযায়ী ফি প্রদান করতে হবে।

ফি প্রদানের ক্ষেত্রে ডাচ-বাংলা ব্যাংক, রকেট মোবাইল ব্যাংকিং ওয়ান লিমিটেড ,ট্রাস্ট ব্যাংক ,টি ক্যাস , মিউচুয়াল , বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক , ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক |

ডকুমেন্ট আপলোড ও আবেদন পত্র সাবমিট

আপনার প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস প্রথমে স্কান  করে বা ছবি তুলে একটি ফোল্ডারে রাখতে হবে |

রাখার পরে সেখান থেকে ছবিটি যখন আপনি ডকুমেন্টস সাবমিট করার প্রয়োজন পড়বে তখন আপনি এখানে সাবমিট করে দিবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন ফর্ম ডাউনলোড

সবশেষে আবেদন সাবমিট করার পরে পুনরায় ড্যাশবোর্ড আসুন।এখানে ডাউনলোড করার একটি লিংক দেখতে পাবেন । এবং এখান থেকে জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন ফর্ম ডাউনলোড করে নিজের কাছে সংরক্ষণ করে রেখে দিবেন|

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন ফি কত টাকা

এনআইডি কার্ড বা স্মার্ট কার্ড সংশোধন ফি সাধারণত দুটি ক্ষেত্রে ধার্য করা হয়|

যেমনএনআইডি কার্ড করার সময় ফরম ২ এর মাধ্যমে NID Card এর জন্য নাগরিক কিছু তথ্য দিয়ে থাকে| যেগুলো  ভোটার আইডি কার্ড এর  সামনের পৃষ্ঠায় প্রদর্শিত হয়ে থাকে যেমন নিজের নাম ,

পিতামাতার নাম, জন্ম তারিখ, ঠিকানা্‌ ,জন্মস্থান ইত্যাদি | এগুলোর মধ্যে যেকোন তথ্য পরিবর্তন করতে হলে প্রথমবার আপনাকে আবেদনের সময় ২০০ টাকা এবং দ্বিতীয়বার আবেদন করার জন্য ৩৪৫ টাকা এবং শেষবার ৫৭৫ টাকা সংশোধন ফি দিতে হবে।এছাড়া এনআইডি কার্ডের সময় বাড়তি কিছু তথ্য দিতে হয় যা জাতীয় পরিচয় পত্রে

প্রকাশিত হয় না| তথ্যগুলো যেমন প্রার্থীর পেশা ,পাসপোর্ট ,মোবাইল নাম্বার ,

শিক্ষাগত যোগ্যতা ,এসব তথ্য সংশোধন করতে ১১৫ টাকা ফি জমা দিতে হবে।

NID  কার্ডের ফি জমা দিবেন যেভাবে

স্মার্ট কার্ড বা এনআইডি কার্ডের সংশোধন ফি যেকোনো মোবাইল ব্যাংকিং  মাধ্যমে খুব সহজে পরিষদ করতে পারবেন। এছাড়াও আপনি ব্যাংকে গিয়ে ও এনআইডি কার্ডের ফি

জমা দিতে পারবেন।

  1. ডাচ-বাংলা ব্যাংক এবং রকেট মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে।
  2. ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড এবং ওকে ওয়ালেট মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে।
  3. ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড এবং টি-ক্যাশ মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে।
  4. মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড।
  5. বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেড।
  6. ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড

এছাড়া ফি পরিশোধের ৩০ মিনিট পর থেকে তথ্য সম্পাদন শুরু করতে পারবেন |

এবং সংশোধিত এনআইডি কার্ড সর্বোচ্চ দুই মাসের ভেতর হাতে পাবেন।

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

এনআইডি কার্ড ভুল থাকলে সংশোধনের সময় যেসব ডকুমেন্টস দরকার হবে তা নিচে উল্লেখ করা হলো| ব্যক্তির নাম অথবা জন্ম তারিখ সংশোধন করতে যেসব কাগজপত্র জমা দিতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন সনদপত্রঃ তথ্য সংশোধনের ক্ষেত্রে অবশ্যই জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করা থাকতে হবে এবং সেটি এ স্ক্যান করে জমা দিতে হবে।

বিবাহিতদের ক্ষেত্রেঃ স্বামী বা স্ত্রীর ক্ষেত্রে এনআইডি কার্ডের এবং কাবিননামার সত্যায়িত কবি জমা দিতে হবে।

মাধ্যমিক বা সম্মানের সনদপত্র যদি থাকেঃ তথ্য সংশোধন ক্ষেত্রে প্রার্থীর কোন শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকলে সেটি জমা দিতে হবে এবং অশিক্ষিত ব্যক্তির ক্ষেত্রে লাগবেনা তাদের ক্ষেত্রে ড্রাইভিং লাইসেন্স পাসপোর্ট লাগবে যদি থাকে।

ঠিকানাঃ সংশোধনের ক্ষেত্রে ব্যক্তির বাড়ির দলিল বা টেলিফোন গ্যাস পানির বিল বাড়ি ভাড়ার চুক্তিপত্র বাড়াবাড়ি ভাড়া সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে।

এনআইডি কার্ড সংশোধন কেন করবেন

যখন ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করেছিলেন তখন ভুলবশত কোন কারণে যদি আপনার কার্ডের কোন তথ্য ভুল এসে থাকে | তাহলে জাতীয় পরিচয়পত্র বা এন আইডি কার্ড সংশোধন করা দরকার পড়ে।এছাড়া স্মার্ট কার্ড ভুল থাকলে কোন প্রকার কাজ আপনি করতে পারবেন না|

NID Card রিলেটেড পোস্ট

এনআইডি কার্ডস নিয়ে শেষ কথা

ভোটার আইডি কার্ডের কোন তথ্য সংশোধন করতে হলে এনআইডি কার্ড প্রদর্শক তথ্যের প্রতীক গুরুত্ব দিতে হবে।যেমন নিজের নাম মাতা পিতার নাম জন্ম তারিখ এসব তথ্যগুলো সংশোধন করার সময় ভালো করে দেখে দেখে পূরণ করতে হবে।এবং কারো যদি শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকে সেক্ষেত্রে সার্টিফিকেটের সাথে মিলিয়ে ভোটার তথ্য পূরণ করা উচিত।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!